Home ভিডিও ক্লাস রসায়ন পদার্থবিজ্ঞান জীববিজ্ঞান গণিত English

Featured Post

উৎপাদনশীলতার ধারণা | উৎপাদনশীলতার গুরুত্ব | উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির উপায়

উৎপাদনশীলতার ধারণা (Productivity) উৎপাদনশীলতা হচ্ছে সম্পদের ব্যবহার করে পণ্য বা সেবা উৎপাদনের পরিমাণ। অর্থাৎ কতটুকু ইনপুট বা কাঁচামাল ব্যবহার করে কি পরিমাণ আউটপুট বা পণ্য উৎপাদন করা যায় তার অনুপাত হচ্ছে উৎপাদনশীলতা। অন্যভাবে উৎপাদনশীলতা বলতে উৎপাদনের দক্ষতাকে বোঝায়। সমপরিমাণ উপকরণ ব্যবহার করে উৎপাদন বৃদ্ধি করতে পারলে বা কম পরিমাণ উপকরণ ব্যবহার করে সমপরিমাণ উৎপাদন করতে পারলে উৎপাদনশীলতা বাড়বে। উৎপাদনশীলতাকে নিম্নোক্ত সমীকরণের মাধ্যমে প্রকাশ করা যায় - অর্থনীতিবিদ Samuelson বলেন, “উৎপাদনশীলতা হচ্ছে একটি শব্দ যা ইনপুটের প্রেক্ষিতে আউটপুটের অনুপাত বুঝায়।” International Labor Organization (ILO) এর মতে, “ব্যাপক অর্থে, কোনো দল, সমাজ, বা দেশে প্রাপ্ত দ্রব্য এবং সেবার সাথে কার্যকর সম্পদের অনুপাত হলো উৎপাদনশীলতা।” উপরোক্ত সংজ্ঞার আলোকে উৎপাদনশীলতা সম্পর্কে বলা যায় যে - ১. উৎপাদনশীলতা হলো উৎপাদন ও উপকরণের অনুপাত ২. উপকরণের তুলনায় উৎপাদনের পরিমাণ বৃদ্ধির হার ৩. শ্রমের দক্ষতা মূল্যায়ন এবং ৪. এটি মুনাফা বৃদ্ধি করে। সুতরাং, পরিশেষে বলা যায় যে, নির্দিষ্ট পরিমাণ সম্পদ ব্যয় করে বা কাজে লাগিয়ে যে পরিমাণ

বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা কাকে বলে?

বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা কাকে বলে?

কাজসমূহের পরিকল্পনা এবং কর্মীদের পর্যবেক্ষণের একটি প্রস্তাবনা যা, শ্রববিভাজন, কর্মীদের ইচ্চা মতো কাজ করার স্বাধীনতার অপসারণ এবং দক্ষ কাজের জন্য ব্যবস্থাপনা পরিষদ যে পরিবর্তনসমূহ আনা জরুরী মনে করেন, এই বিষয়গুলোর ওপর গুরুত্ব আরোপ করে তাকে বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা বলে।

বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা হলো কাজের বৈজ্ঞানিক অধ্যয়ন এবং কাজকে এর ক্ষুদ্রতম কারিগরী উপাদানসমূহে বিভক্তিকরণ এবং তারপর তাদের সবচেয়ে দক্ষ সমাবেশে পুনর্বিন্যাসকরণ।

বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা হলো শ্রমিবিভাজন, সময় এবং গতিবিদ্যা, কাজের পরিমাপ এবং অংশ-হার-মজুরির মাধ্যমে কাজের যুক্তিযুক্তকরণ এবং মান নির্ধারণের ওপর গুরুত্ব আরোপ করে।


বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা মতবাদ - এফ. ডব্লু. টেলর

বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা মতবাদের মূল সূত্র হলো ব্যবস্থাপনায় বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির প্রয়োগ অর্থাৎ পরীক্ষা-নিরীক্ষা, তথ্য অনুসন্ধান, সংগ্রহ, বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা মতবাদের প্রবর্তক হলেন এফ. ডব্লু, টেলর। এই মতবাদের অন্যান্য উল্লেখযোগ্য সমর্থকরা হলেন এইচ.এল ন্যাট, এফ. বি. গিলব্রেথ, এম. এল. কুক এই এইচ. এমারসন প্রভৃতি।

আরও পড়ুনঃ

সর্বাধিক পঠিত পোষ্টসমূহ

বিশ্ব উষ্ণায়ন কাকে বলে? বিশ্ব উষ্ণায়নের কারণ, বিশ্ব উষ্ণায়নের প্রভাব | বিশ্ব উষ্ণায়ন প্রতিরোধের উপায়

উৎপাদনশীলতার ধারণা | উৎপাদনশীলতার গুরুত্ব | উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির উপায়

মধ্যক নির্ণয়ের সূত্র কি?

ভগ্নাংশ কাকে বলে? ভগ্নাংশের প্রকারভেদ | ভগ্নাংশের গুণ ও ভাগ প্রক্রিয়া | ভগ্নাংশ সম্পর্কে তথ্য

সামাজিক পরিবর্তন কাকে বলে? সামাজিক পরিবর্তনের কারণসমূহ

ব্যবস্থাপনা কাকে বলে?

গুণনীয়ক কাকে বলে?

BMR কাকে বলে?

অপ্রচলিত শক্তি কাকে বলে? অপ্রচলিত শক্তির উৎস

পরিসংখ্যান কাকে বলে? পরিসংখ্যানের সংজ্ঞা