সামাজিক বনসৃজন কাকে বলে?

সামাজিক বনসৃজন কাকে বলে?

সামাজিক বনসৃজন হল এমন একটি বনায়ন কর্মসূচি যা স্থানীয় জনগণের অংশগ্রহণের মাধ্যমে পরিচালিত হয়। এই কর্মসূচিতে স্থানীয় জনগণকে বনায়নের জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় এবং তাদেরকে বনায়নের কাজে অংশগ্রহণের জন্য উৎসাহিত করা হয়। সামাজিক বনসৃজনের লক্ষ্য হল বনভূমির পরিমাণ বৃদ্ধি করা এবং স্থানীয় জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নত করা।

সামাজিক বনসৃজনের বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে:

  • বনভূমির পরিমাণ বৃদ্ধি: সামাজিক বনসৃজনের মাধ্যমে বনভূমির পরিমাণ বৃদ্ধি করা যায়। এটি পরিবেশের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক, কারণ বনভূমি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
  • স্থানীয় জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নত করা: সামাজিক বনসৃজন স্থানীয় জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে পারে। বনভূমি থেকে স্থানীয় জনগণ বিভিন্ন উপায়ে উপকৃত হতে পারে, যেমন:
    • বনের ফল, ফুল, ওষধি গাছ সংগ্রহ করে।

    • বনের কাঠ, বাঁশ, ও অন্যান্য সম্পদ ব্যবহার করে।

    • বনের জল ব্যবহার করে।

বাংলাদেশে সামাজিক বনসৃজনের একটি দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে। বাংলাদেশ সরকার বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে সামাজিক বনসৃজনকে উৎসাহিত করে আসছে।

সামাজিক বনসৃজনের কিছু উদাহরণ হল:

  • গ্রামের মানুষ মিলে একটি পাহাড়ে গাছ লাগানোর উদ্যোগ।
  • স্কুলের শিক্ষার্থীরা একটি পার্কে গাছ লাগানোর উদ্যোগ।
  • একটি বেসরকারি সংস্থা একটি গ্রামে সামাজিক বনসৃজন কর্মসূচি বাস্তবায়ন।

সামাজিক বনসৃজন একটি গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি যা বনভূমির পরিমাণ বৃদ্ধি এবং স্থানীয় জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে সাহায্য করে।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url