নেবুলা বা নীহারিকা কাকে বলে?

জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের ধারণা নক্ষত্রের জন্ম মহাকাশে ভাসমান বিশাল বিশাল গ্যাস পিণ্ড থেকে। এই গ্যাস পিণ্ডগুলোকে বলা হয় নীহারিকা বা নেবুলা।
 
পরিষ্কার আকাশে দিকে তাকালে দেখা যায় যে, কোথাও কোথাও আবছা আলোর একটা ছোপ ফুটে রয়েছে। খালি চোখে এ রকম অন্তত দুটো ছোপ দেখা যায় - একটা এন্ড্রোমিডা নক্ষত্রজগতে আর একটা কালপুরুষ নক্ষত্র জগতে। আবছা আলোর মতো দেখতে আন্তঃনক্ষত্রিক এ ধুলো ও গ্যাসের মেঘই নীহারিকা। নীহারিকা আলোকজ্জ্বল হতে পারে আবার অনুজ্জ্বল ঘোর কৃষ্ণবর্ণেরও হতে পারে। এরকম একটা কালো নীহারিকা হচ্ছে কালপুরুষ নক্ষত্রজগতের অশ্বমুখ নীহারিকা। উজ্জ্বল নক্ষত্রের পটভূমিতে এর চেহারা দেখে মনে হয় যেন সত্যিই একটা কালো ঘোড়ার মাথা।
 
নীহারিকা গ্যাস পিণ্ড গড়ে উঠেছে ৫০ থেকে ৭৫ শতাংশ হাইড্রোজেন, ২০ থেকে ৪৫ শতাংশ হিলিয়াম ও বাকি ৫ শতাংশ অন্যান্য মৌলিক পদার্থ। বেশিরভাগ নীহারিকা বা নক্ষত্র তৈরি হয় আন্তঃনক্ষত্রিক গ্যাসের মহাকর্ষীয় সঙ্কোচনের ফলে। যখন আন্তঃনাক্ষত্রিক গ্যাস নিজস্ব ওজনের ফলে সঙ্কুচিত হয় তখন এর কেন্দ্রে গুরুভার নক্ষত্র তৈরি হয় এবং এদের অতিবেগুণি বিকিরণ চারদিকে গ্যাসকে আয়নিত করে। ফলে এগুলো আমাদের কাছে দৃশ্যমান হয়। রোজেট নীহারিকা (Rosette Nebula) এবং পেলিক্যাল নীহারিকা (Pelican Nebula) হচ্ছে এরকম নীহারিকা।
 
সুপারনোভা বিস্ফোরণের ফলেও কোনো কোনো নীহারিকার জন্ম হয়। সুপারনোভা বিস্ফোরণ হচ্ছে গুরুভার নক্ষত্রের মৃত্যু। ১০৫৪ সালে চীনা জ্যোতির্বিদরা একটি সুপারনোভা বিস্ফোরণ পর্যবেক্ষণ করেন। এ সুপারনোভার ঔজ্বল্য এত বেশি ছিল যে কয়েকদিন পর্যন্ত তা দিনের  বেলাতেও দৃষ্টিগোচর হয়েছিল। তাঁরা তখন একে "অতিথি তারা" হিসেবে অভিহিত করেছিলেন। এখনো আমরা ঐ বিস্ফোরণের প্রসারণশীল খোলসকে দেখতে পাই যাকে কাঁকড়া নীহারিকা বা ক্রাব নেবুলা (Crab Nebula) নামে অভিহিত করা হয়। ক্রাব নীহারিকার কেন্দ্র রয়েছে একটি নিউট্রন নক্ষত্র। নিউট্রন নক্ষত্র সম্পর্কে পরে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

 

মন্তব্য

Popular

ইমালসন কি?

টিস্যু ম্যাচ কাকে বলে?

রেজিন কি?

স্পোরুলেশন পদ্ধতি কাকে বলে?

পরিবর্তনশীল যোজ্যতা কি?

উপরিপাতন কাকে বলে?

অ্যাসিটোব্যাকটর কী?

ডিফসফোরাইলেশন কী?