Featured Post

উদ্যোগ উন্নয়নে সহায়ক সেবা প্রয়োজন কেন?

উদ্যোগ উন্নয়নে সহায়ক সেবা প্রয়োজন কেন? ব্যবসায় স্থাপন ও সঠিকভাবে পরিচালনা করতে সহায়তা প্রয়োজন হয়। নতুন ব্যবসায় বা শিল্প স্থাপন একটি সৃজনশীল ও ঝুঁকিপূর্ণ কাজ। এজন্য বিভিন্ন ধরনের সহায়তা প্রয়োজন হয়। উদ্দীপনামূলক সহায়তা উদ্যোক্তা ব্যবসায় স্থাপনে অনুপ্রাণিত করে। সমর্থনমূলক সহায়তা ব্যবসায় বা শিল্প স্থাপনে আর্থিক সাহায্য করে। আবার সংরক্ষণমূলক সহায়তা ব্যবসায়ের কার্যক্রম পরিচালনা এবং সম্প্রসারণের প্রতিবন্ধকতা দূর করে। এভাবে বিভিন্ন সহায়তা শিল্প স্থাপন ও সম্প্রসারণের পথ সহজ করে। আরো পড়ুনঃ বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা কাকে বলে? ব্যাংক কাকে বলে? প্রোটোপ্লাজম কাকে বলে? বৈধ ক্ষমতা কাকে বলে? বাঙালি জাতীয়তাবাদ কাকে বলে? প্রস্বেদন কাকে বলে? প্রস্বেদনের প্রকারভেদ সমগোত্রীয় শ্রেণি কাকে বলে? মুত্তাকী কাকে বলে?

অধিকার কাকে বলে?

অধিকার কাকে বলে?

সাধারণ অর্থে অধিকার বলতে নিজ ইচ্ছা অনুযায়ী কিছু করার ক্ষমতাকে বুঝায়। এই অর্থে অন্যকে হত্যা করাও অধিকার বলে বিবেচিত হতে পারে। কিন্তু পৌরনীতিতে অবাধ ও স্বেচ্ছাচারী ক্ষমতাকে অধিকার বলে না। 

সভ্য সমাজে স্বেচ্ছাচার সম্ভব নয়। অধিকার বলতে তাই নিয়ন্ত্রিত ক্ষমতা বুঝায়। পৌরনীতিতে অধিকার বলতে কতকগুলি সুযোগ-সুবিধাকে বুঝায় যা ছাড়া ব্যক্তির ব্যক্তিত্ত্বের বিকাশ সম্ভব নয়। অধিকার সামাজিক বিষয়। 

অধ্যাপক লাস্কি বলেন, "অধিকার সমাজ বহির্ভূত বা সমাজ নিরপেক্ষ নয়, এটা সমাজভিত্তিক।" এজন্যই অধিকার অর্থ মঙ্গলময় জীবন। রাষ্ট্র সামাজিক কল্যাণের পরিবেশ সৃষ্টি ও সংরক্ষণ করে। এরূপ পরিবেশই ব্যক্তিত্বের বিকাশ সাধান সম্ভব। 

অধ্যাপক লাস্কি অধিকারের সংজ্ঞা দিয়ে যথার্থই বলেছেন, "অধিকার সমাজ জীবনের সেই সব অবস্থা যা ব্যতীত মানুষ তার সর্বোৎকৃষ্ট সত্তার সন্ধান লাভ করতে পারে না।"

টি, এইচ, গ্রীন অধিকার বলতে অনুরূপ ধারণা দিয়ে বলেন, "মানুষের অভ্যন্তরীণ গুণাবলির বিকাশ সাধনের জন্য অধিকার কতকগুলো বাহ্যিক শর্ত।"

সহজ কথায়, অধিকার কতকগুলো অনুকূল শর্তকে বুঝায় যা ব্যক্তির ব্যক্তিত্ব বিকাশের জন্য অপরিহার্য।

অধিকারের বৈশিষ্ট্য

অধিকারের সংজ্ঞা ও ধারণা বিশ্লেষণ করলে অধিকারের নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্য পরিলক্ষিত হয়।

১) অধিকার প্রকৃতপক্ষে সীমিত সুযোগ সুবিধা। রাষ্ট্র ও সমাজ কর্তৃক আরোপিত সীমাবদ্ধতার মধ্যেই অধিকার ভোগ করতে হয়।

২) অধিকার নিরংকুশ নয়। অধিকার ভোগ করতে হলে কর্তব্য সম্পাদন করতে হয়।

৩) অধিকার একটি সামাজিক বিষয়। সমাজ বহির্ভূত জীবনে অধিকারের কোন তাৎপর্য নেই।

৪) অধিকার একটি গতিশীল ধারণা। সামাজিক পরিবর্তনের সাথে সাথে অধিকারের প্রকৃতি ও বিস্তৃতির পরিবর্তন ঘটে।

৫) অধিকার ভোগের সাথে সকলের কল্যাণ জড়িত।

আরও পড়ুনঃ

👉  একটি সমাজ গঠন করতে কৃষি কিভাবে ভূমিকা পালন করে?

👉  যৌথ পরিবার কাকে বলে?

👉  ডিজিটাল বাংলাদেশ কাকে বলে?

👉  ভোটাধিকার কি একটি মৌলিক অধিকার?

সর্বাধিক পঠিত পোষ্টসমূহ

ব্যবস্থাপনা কাকে বলে?

বিশ্ব উষ্ণায়ন কাকে বলে? বিশ্ব উষ্ণায়নের কারণ, বিশ্ব উষ্ণায়নের প্রভাব

উদ্যোগ উন্নয়নে সহায়ক সেবা প্রয়োজন কেন?

গুণনীয়ক কাকে বলে?

নিকৃষ্ট দ্রব্য কাকে বলে?

জনমত কি? জনমত কাকে বলে? জনমত বলতে কি বুঝ? জনমতের সংজ্ঞা, জনমত গঠনে গণমাধ্যমের ভূমিকা

গণতন্ত্র কাকে বলে? গণতন্ত্রের প্রকারভেদ ও গণতন্ত্রের বৈশিষ্ট্য

কাজ কাকে বলে? কাজ কত প্রকার ও কি কি? ধনাত্মক কাজ ও ঋণাত্মক কাজ

আলোর প্রতিসরণ কাকে বলে?

পেশা কাকে বলে? পেশার বৈশিষ্ট্য বা মানদণ্ড